জানু-মার্চ: লাইফ বীমায় নতুন পলিসি বেড়েছে ২ লাখ ৮৬ হাজার

নিজস্ব প্রতিবেদক: চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে মার্চ মাস পর্যন্ত তিন মাসে লাইফ বীমা কোম্পানিরগুলোর গ্রাহক বা পলিসি সংখ্যা বেড়েছে ২ লাখ ৮৬ হাজার ৩৭৫টি। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি পলিসি বেড়েছে মেটলাইফ আলিকোর। আলোচ্য সময়ে কোম্পানিটির মোট পলিসি সংখ্যা বেড়েছে ৬৭ হাজার ৯৮৩টি। নতুন পলিসি বৃদ্ধির দিক থেকে এর পরেই রয়েছে পপুলার লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড। কোম্পানিটির মোট পলিসি বেড়েছে ৫৮ হাজার ২১৮টি। এ সময়ে সবচেয়ে কম পলিসি বেড়েছে নতুন অনুমোদন পাওয়া আলফা ইসলামী লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানির। কোম্পানিটির পলিসি বেড়েছে মাত্র ১২৬টি। অন্যদিকে পুরাতন ১৮টি কোম্পানির মধ্যে কম পলিসি বেড়েছে বায়রা লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানির। কোম্পানিটিতে পলিসি বেড়েছে মাত্র ১ হাজার ২৩৩টি। সম্প্রতি আইডিআরএ কোম্পানিগুলোর পাঠানো ত্রৈমাসিক প্রতিবেদন পর্যালোচনা করে এসব তথ্য পাওয়া গেছে। প্রতিবেদন পর্যালোচনায় দেখা গেছে, লাইফ বীমার ৩১টি কোম্পানির মধ্যে ২৬টির প্রতিবেদন উল্লেখ্য রয়েছে। বাকি ৫টি কোম্পানির কোনো তথ্য প্রতিবেদনে পাওয়া যায়নি। প্রতিবেদন অনুযায়ী, ২০১৪ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত কোম্পানিগুলোর মোট পলিসি ছিলো ১ কোটি ৭৭ লাখ ২০ হাজার ৪৪৮টি। চলতি বছরের মার্চ মাস শেষে বেড়ে পলিসির সংখ্যা দাঁড়িয়েছে এক কোটি ৭৯ লাখ ২৯ হাজার ৬৫২টি। এ সময়ে নতুন পলিসি বাড়ে ২ লাখ ৮৬ হাজার ৩৭৫টি। প্রতিবেদনে দেখা গেছে, ২০১৪ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত মেটলাইফ আলিকোর মোট পলিসি সংখ্যা ছিলো ১৪ লাখ ১ হাজার ৮৩৫টি। এর পর চলতি বছরের জানুয়ারিতে বাড়ে ২১ হাজার ৪৫টি, ফেব্রুয়ারিতে বাড়ে ২৯ হাজার ৯২৮টি ও মার্চে বাড়ে ১৭ হাজার ১০টি। অর্থাৎ তিন মাসে কোম্পানিটির পলিসি সংখ্যা ৬৭ হাজার ৯৮৩টি বেড়ে মার্চ শেষে মোট পলিসির সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৪ লাখ ১৩ হাজার ৫৮৬টি। পলিসি বৃদ্ধির দিক থেকে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে পপুলার লাইফ ইন্স্যুরেন্স। ২০১৪ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত কোম্পানিটির মোট পলিসি সংখ্যা ছিলো ৫০ লাখ ৪১ হাজার ৪৭৩টি। এর পর চলতি বছরের জানুয়ারিতে বাড়ে ২৮ হাজার ৭৭৭টি, ফেব্রুয়ারিতে বাড়ে ১৯ হাজার ২৩৫টি ও মার্চে বাড়ে ১০ হাজার ২১৬টি। অর্থাৎ তিন মাসে কোম্পানিটির পলিসি সংখ্যা ৫৮ হাজার ২২৮টি বেড়ে মার্চ শেষে মোট পলিসি সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৫০ লাখ ৯৯ হাজার ৭০১টি। ডেল্টা লাইফ ইন্স্যুরেন্সের চলতি বছরের জানুয়ারিতে পলিসি বেড়েছে ১৪ হাজার ৯৬১ জন, ফেব্রুয়ারিতে ১৫ হাজার ২১৬টি ও মার্চে ১৪ হাজার ৮১২টি পলিসি বেড়েছে। অর্থাৎ তিন মাসে কোম্পানিটির নতুন পলিসি বিক্রি হয়েছে ৪৪ হাজার ৯৮৯টি। মার্চ শেষে কোম্পানিতে মোট পলিসির সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১৮ লাখ ১১ হাজার ৩৩০টিতে। ফারইস্ট লাইফ ইন্স্যুরেন্সের চলতি বছরের জানুয়ারিতে বাড়ে ৫ হাজার ৫৬০টি, ফেব্রুয়ারিতে বাড়ে ৭ হাজার ৯৬৫টি ও মার্চে বাড়ে ১০ হাজার ৮৫০টি। অর্থাৎ তিন মাসে কোম্পানিটির পলিসি সংখ্যা বেড়েছে ২৪ হাজার ৩৭৫টি। মার্চ শেষে মোট পলিসি সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২৬ লাখ ৮৮ হাজার ২৩৯টি। মেঘনা লাইফ ইন্স্যুরেন্সের চলতি বছরের জানুয়ারিতে বাড়ে ৪ হাজার ৯৭৬টি, ফেব্রুয়ারিতে বাড়ে ৭ হাজার ৩৭২টি ও মার্চে বাড়ে ৬ হাজার ২৩৫টি। অর্থাৎ তিন মাসে কোম্পানিটির পলিসি সংখ্যা বেড়েছে ১৮ হাজার ৩৮৩টি। মার্চ শেষে মোট পলিসি সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২৬ লাখ ৪১ হাজার ৭৭৫টি। সন্ধানী লাইফ ইন্স্যুরেন্সের চলতি বছরের জানুয়ারিতে বাড়ে ২ হাজার ৯২৬টি, ফেব্রুয়ারিতে বাড়ে ৪ হাজার ৪৩৩টি ও মার্চে বাড়ে ৯ হাজার ৬০৫টি। অর্থাৎ তিন মাসে কোম্পানিটির পলিসি সংখ্যা বেড়েছে ১৭ হাজার ৯টি। মার্চ শেষে মোট পলিসির সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৯ লাখ ১৮ হাজার ৬৯৮টি। রূপালী লাইফ ইন্স্যুরেন্সের চলতি বছরেরর জানুয়ারিতে বাড়ে ৮ হাজার ৬৮টি, ফেব্রুয়ারিতে বাড়ে ১ হাজার ৮৩৪টি ও মার্চে বাড়ে ৩ হাজার ৫টি। অর্থাৎ তিন মাসে কোম্পানিটির পলিসি সংখ্যা বেড়েছে ১২ হাজার ৯০৭টি। মার্চ শেষে মোট পলিসি সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৪ লাখ ১৭ হাজার ৬৮১টি। প্রাইম ইসলামি লাইফ ইন্স্যুরেন্সের চলতি বছরের জানুয়ারিতে বাড়ে ২ হাজার ৫১২টি, ফেব্রুয়ারিতে বাড়ে ২ হাজার ৮৮৩টি ও মার্চে বাড়ে ৩ হাজার ৭৬টি। অর্থাৎ তিন মাসে কোম্পানিটির পলিসি সংখ্যা বেড়েছে ৮ হাজার ৪৭১টি। মার্চ শেষে মোট পলিসি সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৪ লাখ ৪৮ হাজার ৭৩৯টি। পদ্মা লাইফ ইন্স্যুরেন্সের চলতি বছরের জানুয়ারিতে বাড়ে ২ হাজার ৬৭৮টি, ফেব্রুয়ারিতে বাড়ে ২ হাজার ৮৭২টি ও মার্চে বাড়ে ২ হাজার ৭০০টি। অর্থাৎ তিন মাসে কোম্পানিটির পলিসি সংখ্যা বেড়েছে ৮ হাজার ২৫০টি। মার্চ শেষে মোট পলিসি সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৪ লাখ ৪৪ হাজার ৮৭৪টি। প্রগ্রেসিভ লাইফ ইন্স্যুরেন্সের চলতি বছরেরর জানুয়ারিতে বাড়ে ২ হাজার ১৩৯টি, ফেব্রুয়ারিতে বাড়ে ১ হাজার ৭৪টি ও মার্চে বাড়ে ১ হাজার ৪০টি। অর্থাৎ তিন মাসে কোম্পানিটির পলিসি সংখ্যা বেড়েছে ৪ হাজার ২৫৩টি। মার্চ শেষে মোট পলিসি সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১ লাখ ৮৫ হাজার ১১০টি। জীবন বীমা করপোরেশন চলতি বছরের জানুয়ারিতে বাড়ে ১ হাজার ২৯৪টি, ফেব্রুয়ারিতে বাড়ে ১ হাজার ৩৬০টি ও মার্চে বাড়ে ১ হাজার ৩৩০টি। অর্থাৎ তিন মাসে কোম্পানিটির পলিসি সংখ্যা বেড়েছে ৩ হাজার ৯৮৪টি। মার্চ শেষে মোট পলিসি সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৩ লাখ ৪৬ হাজার ৫৩৬টি। সানফ্লাওয়ার লাইফ ইন্স্যুরেন্সের চলতি বছরের জানুয়ারিতে বাড়ে ১ হাজার ৮২৭টি, ফেব্রুয়ারিতে বাড়ে ৯৩৯টি ও মার্চে বাড়ে ৫০টি। অর্থাৎ তিন মাসে কোম্পানিটির পলিসি সংখ্যা বেড়েছে ২ হাজার ৮১৬টি। মার্চ শেষে মোট পলিসি সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২ লাখ ৭৮ হাজার ৯২৩টি। সান লাইফ ইন্স্যুরেন্সের চলতি বছরেরর জানুয়ারিতে বাড়ে ৪৩৪টি, ফেব্রুয়ারিতে বাড়ে ৭৪৯টি ও মার্চে বাড়ে ১ হাজার ৪৩৯টি। অর্থাৎ তিন মাসে কোম্পানিটির পলিসি সংখ্যা বেড়েছে ২ হাজার ৬২২টি। মার্চ শেষে মোট পলিসি সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৫ লাখ ৬৫ হাজার ৩৮৩টি। গোল্ডেন লাইফ ইন্স্যুরেন্সের চলতি বছরের জানুয়ারিতে বাড়ে ৩৮১টি, ফেব্রুয়ারিতে বাড়ে ৪৫০টি ও মার্চে বাড়ে ৫৪২টি। অর্থাৎ তিন মাসে কোম্পানিটির পলিসি সংখ্যা বেড়েছে এক হাজার ৩৭৩টি। মার্চ শেষে মোট পলিসি সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১ লাখ ৩৮ হাজার ৯৫৩টি। বায়রা লাইফ ইন্স্যুরেন্সের চলতি বছরের জানুয়ারিতে বাড়ে ১৯৪টি, ফেব্রুয়ারিতে বাড়ে ৩৬২টি ও মার্চে বাড়ে ৬৭৭টি। অর্থাৎ তিন মাসে কোম্পানিটির পলিসি সংখ্যা বেড়েছে এক হাজার ২৩৩টি। মার্চ শেষে মোট পলিসি সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ৪ লাখ ৭৬ হাজার ৩৮৪টি। আইডিআরএ’র ওই প্রতিবেদনে ৩১টি লাইফ বীমা কোম্পানির মধ্যে ৫টি কোম্পানির কোনো তথ্য পাওয়া যায়নি। কোম্পানিগুলোর হলো- হোমল্যান্ড লাইফ ইন্স্যুরেন্স, মাকেন্টাইল লাইফ ইন্স্যুরেন্স, ন্যাশনাল লাইফ ইন্স্যুরেন্স, প্রগতি লাইফ ইন্স্যুরেন্স, প্রোটেক্টিভ লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি। জানা গেছে, লাইফ বীমার ৩১টি কোম্পানির মধ্যে ১৩ কোম্পানি একেবারেই নতুন। এগুলো হলো আলফা ইসলামি লাইফ ইন্স্যুরেন্স, বেস্ট লাইফ ইন্স্যুরেন্স, চার্টার্ড লাইফ ইন্স্যুরেন্স, ডায়মন্ড লাইফ ইন্স্যুরেন্স, গার্ডিয়ান লাইফ ইন্স্যুরেন্স, যমুনা লাইফ ইন্স্যুরেন্স, মার্কেন্টাইল লাইফ ইন্স্যুরেন্স, এনআরবি গ্লোবাল লাইফ ইন্স্যুরেন্স, প্রোটিক্টিভ লাইফ ইন্স্যুরেন্স, স্বদেশ লাইফ ইন্স্যুরেন্স, সোনালী লাইফ ইন্স্যুরেন্স, ট্রাস্টি লাইফ ইন্স্যুরেন্স ও জেনিথ ইসলামি লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি লিমিটেড। কোম্পানিগুলোকে গত ২০১৩ সালে অনুমোদ দেয় আইডিআরএ। অনুমোদনের পর থেকে ১৩টি কোম্পানির মধ্যে সবচেয়ে বেশি পলিসি বৃদ্ধি করেছে জেনিথ ইসলামি লাইফ ইন্স্যুরেন্স। চলতি বছরের জানুয়ারি থেকে মার্চ মাস পর্যন্ত তিন মাসে কোম্পানিটি মোট পলিসি বৃদ্ধি করে ২ হাজার ১৪০টি। আর মার্চ শেষে কোম্পানিটির মোট পলিসি সংখ্যা দাঁড়ায় ১২ হাজার ৮৬৭টি। অন্যদিকে সবচেয়ে খারাপ অবস্থানে রয়েছে গার্ডিয়ান লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি। চলতি বছরের মার্চ মাস পর্যন্ত কোম্পানিটির মোট পলিসি সংখ্যা মাত্র ৪০৮টি। এর মধ্যে ২০১৪ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত পলিসি ছিলো ২৪৩টি। এরপর জানুয়ারিতে বাড়ে ৪৮টি, ফেব্রুয়ারিতে বাড়ে ৫৯টি আর মার্চে বাড়ে ৫৮টি। তবে উক্ত সময়ে পলিসি বৃদ্ধির দিক থেকে সর্বনিম্ন অবস্থানে রয়েছে আলফা ইসলামি লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি। এ সময়ে কোম্পানিটির পলিসি বেড়েছে মাত্র ১২৬ টি। আর চলতি বছরের মার্চ শেষে মোট পলিসি সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১ হাজার ৫০৯ টি। এছাড়া উক্ত সময়ে অন্যান্য নতুন কোম্পানির পলিসি বৃদ্ধির পরিমাণ হলো- বেস্ট লাইফ ইন্স্যুরেন্স কোম্পানি ৩৬২টি, চার্টার্ড লাইফের ৬০১, ডায়মন্ড লাইফের ১১১৪, গার্ডিয়ান লাইফের ১৬৫, যমুনা লাইফের ১ হাজার ৫১৫টি, এনআরবি গ্লোবাল লাইফের ৭০০, স্বদেশ লাইফের ৪০৯টি, সোনালী ৮৮৫টি, ট্রাস্টি ১৩২৭টি।